রাজস্থানে সহজ জয় কংগ্রেসের

রাজস্থানের আস্থা ভোটে সহজ জয় পেল কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার সমস্ত বিবাদ ভুলে অশোক গেহলতের সঙ্গে হাত মিলিয়েছিলেন বিদ্রোহী নেতা সচিন পাইলট। তখনই বোঝা গিয়েছিল কি হতে চলেছে। শুক্রবার বিধানসভার অধিবেশন শুরুর আগেই ট্যুইট করে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলত লেখেন, ‘সত্যমেব জয়তে’। তারপরই রাজস্থান বিধানসভায় আস্থাভোট হলে ২০০ আসনের বিধানসভায় ১২৫ বিধায়কের সমর্থন পায় কংগ্রেস। ধ্বনিভোটে জয় আসে কংগ্রেসের।

           রাজ্যপালের কাছে বারবার দরবার করার পর শেষপর্যন্ত ১৪ অগাস্ট বিধানসভার অধিবেশন বসানোর অনুমতি পায় কংগ্রেস। অবশ্য অধিবেশনের দিন কয়েক আগে বিদ্রোহী ১৯ বিধায়ক ও সচিন পাইলটকে ক্ষোভ মিটিয়ে দলে ফেরান রাহুল গান্ধীরা। তবুও বিজেপি অনাস্থা প্রস্তাব আনতে চায়। শুক্রবার বিধানসভার অধিবেশন বসে। কিছুটা অশান্তি হলেও শেষ পর্যন্ত ধ্বনি ভোটেই জয় পেলেন অশোক গেহলত। ভোটাভুটি পর্যন্ত যেতেও হল না। আর সেই ফল ঘোষণার পরেই ২১ অগাস্ট পর্যন্ত বিধানসভা মুলতুবি করে দিলেন স্পিকার।

         প্রবল রাজনৈতিক টানাপোড়েনের পর সচিন-গেহলত মুখোমুখি হয়ে বিজেপিকেই হারিয়ে দিলেন আস্থাভোটে। যদিও সচিন আর গেহলতের পুনর্মিলনের পর দুশ্চিন্তা কেটে গিয়েছিল কংগ্রেসের, শুক্রবার শেষ হাসি হাসল কংগ্রেসই। ভোটে জেতার পরেই গলার সুর চড়িয়ে বিধানসভায় বিজেপিকে ভালরকম আক্রমণ করলেন অশোক গেহলত। বিজেপি ষড়‌যন্ত্র করে মধ্যপ্রদেশের সরকার ফেলে দিল। করোনা সংক্রমণের মধ্যেই গণতন্ত্রের রাজনীতির অপব্যবহার করার ফলে দেশের আসল দিকে নজর দেওয়া যায়না। সেই সময় করোনার দিকে নজর দিলে দেশের পক্ষে ভালো হত। কিছুটা একই সুরে এদিন সচিন পাইলটকেও কথা বলতে শোনা গেল। তিনি বললেন, আস্থা ভোটের পর প্রমাণ হয়ে গেল, কংগ্রেসের সব বিধায়করা একসঙ্গে আছেন।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s