বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় সকলকে বেকসুর খালাস করা হল

বাবরি মসজিদ ধ্বংসের মামলায় লালকৃষ্ণ আডবাণী, মুরলী মনোহর যোশি ও উমা ভারতী-সহ ৩২ জন অভিযুক্তকেই বেকসুর খালাস করল লখনৌয়ের বিশেষ সিবিআই আদালত। বুধবার লখনউয়ের বিশেষ আদালতে রায় পড়লেন বিচারক সুরেন্দ্রকুমার যাদব। বিচারকের যুক্তি এই ধ্বংসলীলা পূর্বপরিকল্পিত ছিল না। তথ্যপ্রমাণও যথেষ্ট নয় বলে জানায় আদালত। ফলে সসম্মানে মুক্তি দেওয়া হল সমস্ত অভিযুক্তকেই।

     দীর্ঘ ২৮ বছর পর রায়দান হল বাবরি মসজিদ ধ্বংসের মামলা। বাবরি ধ্বংসে রায় প্রায় ২০০০ পাতার। ২ সেপ্টেম্বর শুরু হয় রায় লেখার কাজ। বুধবার সকাল ১১টা ৫০ মিনিট নাগাদ সেই রায় পড়তে শুরু করেন বিচারক সুরেন্দ্রকুমার যাদব। সিবিআই যে অডিও ও ভিডিও ক্লিপ প্রমাণ হিসেবে দিয়েছে, সেগুলি যথেষ্ট নয়। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণও নেই। বরং কিছু অসামাজিক ব্যক্তি এই ঘটনায় লিপ্ত হয়েছিল। অভিযুক্তরা তাদের বাধা দেওয়ারই চেষ্টা করেন। এ দিন মোট ২৬ জন অভিযুক্ত যোগ দেন এজলাসে। তবে আদালতে হাজির ছিলেন না আডবাণী, যোশি ও উমা ভারতীর মতো বিজেপির শীর্ষ নেতারা। তাঁরা ভিডিয়ো লিংকের মাধ্যমে রায়দানে যোগ দেন। প্রসঙ্গত, গত বছরই অযোধ্যা মামলার রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। বিতর্কিত যে জমিতে বাবরি মসজিদ ছিল, সেটিকে রামজন্মভূমি বলে ঘোষণা করা হয়েছে। তবে বাবরি মসজিদ ভাঙার নিন্দাও করেছিল সর্বোচ্চ আদালত।

            এহেন পরিস্থিতিতে এই রায়ের কোনও প্রভাব বাবরি ধ্বংসের মামলায় পড়ে কি না, সেদিকেও নজর রয়েছে পর্যবেক্ষকদের। ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বরের ঘটনা। উন্মত্ত হিংসা দেখেছিল গোটা দেশ। রামভক্তদের হামলায় গুঁড়িয়ে গিয়েছিল শতাব্দীপ্রাচীন বাবরি মসজিদ। শুরু হয়েছিল গোষ্ঠী হিংসা।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s