হাথরসের ঘটনাকে ‘ভয়াবহ’ বলে উল্লেখ করল সুপ্রিম কোর্ট

শীর্ষ আদালত মন্তব্য করল হাথরসের ঘটনা ভয়াবহ। স্বাভাবিকভাবেই এই মন্তব্যে অস্বস্তিতে পড়েছে যোগী সরকার। উত্তরপ্রদেশ সরকারের দাবি কোনও রকম হিংসা এড়াতেই সেই রাত্রে হাতরাসের নির্যাতিতার দেহ পোড়ানো হয়েছিল। শীর্ষ আদালত জানতে চায়, এই ঘটনায় সাক্ষীদের সুরক্ষার কী ব্যবস্থা রয়েছে? উত্তরপ্রদেশ সরকারের কাছে জানতে চাওয়া হয়, নির্যাতিতার পরিবারের নিরাপত্তার ব্যবস্থাই বা কী? এদিন যোগী সরকারের হলফনামা তলব করে সুপ্রিমকোর্ট। এক সপ্তাহ পর এই মামলার শুনানির দিন ধার্য করা হয়। তার মধ্যেই যোগী সরকারকে জমা দিতে হবে হলফনামা। সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে আবেদনকারীদের বলা হয়, হাথরস কাণ্ডের স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ তদন্ত সুনিশ্চিত করবে আদালত। ইতিমধ্যেই হাথরস কাণ্ডে হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে ১৯ টি এফআইআর করেছে যোগী সরকার। শুনানির শুরুতেই এদিন উত্তরপ্রদেশ সরকার ১৬ পাতার একটি বিবৃতি জমা দেয়। এদিন বিচারপতি এস এ বোবদের বেঞ্চ হাথরস বিষয়ক জনস্বার্থ মামলা শোনে। সেখানে দাবি ছিল, কোনও অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির নজরদারিতে তদন্ত হোক। ন্যায়বিচারের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে সেই বেঞ্চের তরফে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s