বিজেপি-র উত্তরকন্যা অভিযানে ধুন্ধুমার, এক কর্মীর মৃত্যু

শিলিগুড়িতে বিজেপির উত্তরকন্যা অভিযানে তুলকালাম কান্ড ঘটল শিলিগুড়িতে। মৃত্যু হল এক বিজেপি কর্মীর। তিনবাত্তি মোড় ও জলপাইগুড়ি মোড় থেকে গেরুয়াশিবিরের দুই মিছিল বেরিয়েছিল উত্তরকন্যা অভিযানে। দুপুর একটা নাগাদ দুই মোড় থেকেই উত্তরকন্যার দিকে মিছিল এগোতে থাকে। ফুলবাড়ির মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন দিলীপ ঘোষ, সায়ন্তন বসু, জয়ন্ত রায়রা। দিলীপ ঘোষকে আটকে দেয় পুলিশ। মিছিলের শুরু থেকেই উত্তেজনা ছিল চরমে। মিছিল আটকাতে ব্যারিকেড করে রেখেছিল পুলিশ। কিন্তু সেই ব্যারিকেড ভেঙে এগোনোর চেষ্টা করে মিছিল। বাধা দেয় পুলিশ। ছোড়া হয় টিয়ার গ্যাসের সেল। এরই মাঝে এক বিজেপি কর্মীর আঘাত লেগেছে বলে জানা যায়।
গজলডোবার বাসিন্দা উলেন রায়(৫০) নাম ওই বিজেপি কর্মীর পেটের উপরের অংশে পেলেটের আঘাত রয়েছে বলে প্রাথমিক রিপোর্টে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তবে ময়নাতদন্তেই মৃত্যুর কারণ স্পষ্ট হবে। যদিও পুলিশের গুলিতে কিংবা লাঠির আঘাতে ওই বিজেপি কর্মীর মৃত্যুর অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে রাজ্য পুলিশ। এদিকে ওই কর্মীর ছবি দিয়ে পুলিশের রাবার বুলেটে মৃত্যু হয়েছে বলে ট্যুইট করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। অপরদিকে, দিলীপ ঘোষ দাবি করেছেন, পুলিশ ছাদ থেকে আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে বোমা ছুড়েছে। ঘণ্টা তিনেক পুলিশের সঙ্গে বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের ধস্তাধস্তি হয়।কাঁদানে গ্যাসের শেলে অসুস্থ হয়ে পড়েন কয়েকজন বিজেপি কর্মী। মহারাজা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁদের। আগে থেকেই শহরের প্রায় সব কটি প্রবেশদ্বার বন্ধ করে দেয় পুলিশ। তিনবাত্তি মোড়ে জারি হয় ১৪৪ ধারা। কাঁদানে গ্যাস, জলকামান নিয়ে আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল পুলিশ। ডুয়ার্স-তরাইয়ের বিভিন্ন রাস্তায় ছিল নাকা চেকিং।পুলিশের তরফে এদিন ঘোষণা করা হয়েছিল, ওই এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি হয়েছে। জমায়েতকে ছত্রভঙ্গ হওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তাতে কর্ণপাত না করে এগিয়ে গিয়েছিল যুব মোর্চা। এরপরই বিক্ষোভকারীদের হটাতে প্রথমে টিয়ার গ্যাস ছোঁড়ে পুলিশ। পালটা ব্যারিকেড ভেঙে এগোনোর চেষ্টা করেন বিজেপি কর্মীরা। জলকামানও ছোড়া হয় পুলিশের তরফে। নৌকাঘাট মোড় থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে উড়ে আসে ইট, পাথর, কাচের বোতল। ফের পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে। বিক্ষোভকারীদের হঠাতে লাঠি চালায় পুলিশ। কয়েকজনকে আটক করা হয়।
এই প্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ের দাবি, ‘‘বিজেপি কর্মীরা অশান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করেছেন। তবে সেই তুলনায় সংযম দেখিয়েছে শিলিগুড়ির পুলিশ।’’ পুলিশের তরফে ট্যুইট করে বলা হয়েছে, ‘আজকে শিলিগুড়িতে একটি রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি ঘিরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। তাঁরা সরকারি সম্পত্তিতে ভাঙচুর চালায়। পুলিশের তরফে কোনও গুলি-লাঠিচার্জ করা হয়নি।’ এদিকে কর্মী মৃত্যুর প্রতিবাদে মঙ্গলবার ১২ ঘণ্টার উত্তরবঙ্গ বনধের ডাক দিয়েছে বিজেপি।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s